অনলাইন ভিত্তিক ডাকঘর সঞ্চয় স্কিম- নতুন যুগের সূচনা

 

 
অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র ভিত্তিক এ প্রক্রিয়া আগামী ১৭ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। অনলাইন ভিত্তিক ডাকঘর সঞ্চয় স্কিম- নতুন যুগের সূচনা

বুধবার (১১ই মার্চ ) সচিবালয়ে ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক সাধারণ ও মেয়াদি হিসাব কার্যক্রম অটোমেশনর জন্য ওয়েবভিত্তিক ডেটাবেইজ সিস্টেম উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী এ তথ্য জানান।

 

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এ প্রক্রিয়ায় ডাকঘরে হিসাব খোলার সাথে সাথে স্বয়ংক্রিয়ভাবে জমা স্লিপ ও হিসাব খোলার সনদ পাওয়া যাবে। জাতীয় পরিচয়পত্রভিত্তিক হওয়ায়, এ সিস্টেমে গ্রাহকের ছবিসহ যাবতীয় তথ্য যাচাই করে নির্ভুল মুনাফা ও মূল অর্থ পরিশোধ করবে। জাতীয় পরিচয়পত্রভিত্তিক বিনিয়োগের ঊর্ধ্বসীমা অতিক্রম নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।  একই সাথে টিআইএন ব্যবহারের মাধ্যমে বিনিয়োগ হবে বলে, অর্থের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।
অনলাইন ভিত্তিক ডাকঘর সঞ্চয় স্কিম- নতুন যুগের সূচনা
অটোমেশনের ফলে গ্রাহকের চাহিদা অনুযায়ী মুনাফার অর্থ ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফারের (ইএফটি) মাধ্যমে ব্যাংক হিসাবে পাঠানো হবে। গ্রাহক তার হিসাবে জমা, উত্তোলন ও স্থিতির তথ্য মোবাইল ও ই-মেইলের মাধ্যমে জানতে পারবেন।
অর্থ বিভাগ বিদ্যমান সিস্টেম ব্যবহার করে এ অটোমেশন কাজ করেছে এবং এজন্য সরকারের অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করতে হয়নি বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়। 

 

ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের টার্গেট-পিপল সম্পর্কে বলতে গিয়ে অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী বলেন, “আমাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে, এই সঞ্চয়পত্র স্কিমটি দেখতে চাই যাদের জন্য করা হয়েছে তারা যেন উপকৃত হন। এখানে ব্যবসায়ীরা এসে কিনুক আমি চাই না। ডাক ডিপোজিট ও ডিমান্ড ডিপোজিট অটোমেশনে যাব, ১৭ মার্চ সম্পূর্ণভাবে অনলাইনে শুরু করতে পারব পূর্ণমাত্রায়।”
একই সাথে মুনাফার হার মেয়াদী হিসাবে ১১.২৮ শতাংশ এবং সাধারণ হিসাবে ৭.৫ শতাংশ পূর্ণনির্ধারণ করা হবে বলেও জানানো হয়।