গর্ভবতী নারীর জন্য করোনা কতটা ঝুকিপূর্ণ

 

 
 
 
গর্ভবতী নারীর জন্য দুনিয়াজুড়ে ছড়িয়ে পড়া কোভিড-১৯ কতটা ঝুকিপূর্ণ? বিষয়টি নিয়ে এখনও গবেষণা চলমান।  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এ বিষয়ে কিছু পর্যবেক্ষণ রয়েছে। গর্ভবতী নারীর জন্য করোনা কতটা ঝুকিপূর্ণ 
 
 
১. বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে,  যদিও তথ্য-উপাত্তের সীমাবদ্ধতা রয়েছে, এখনও এমন কোন প্রমাণ মিলেনি যে, সাধারণ মানুষের তুলনায় গর্ভবতীরা বেশি ঝুকিতে। তবে গর্ভবতী নারীদের শারিরীক ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সংক্রান্ত পরিবর্তনের কারণে তাদের শ্বসতন্ত্র মারাত্মভাবে আক্রন্ত হতে পারে।
 
২. কোভিড-১৯ এর সংক্রমন থেকে সুরক্ষার জন্য সাধারণ মানুষদের মতই গর্ভবতী নারীদেরও পূর্ব সর্তকতামূলক স্বস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সাবান-পানি অথব সেনিটাইজার দিয়ে বারবার  ৩০ সেকেন্ড ধরে হাত ধুতে হবে। অন্যদের থেকে দুরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে।  হাত না ধুয়ে নাক, মুখ ও চোখ স্পর্শ করা যাবে না। হাঁচি বা কাশি দেয়ার সময় কুনইর ভাঁজে অথবা টিস্যু ব্যবহার করতে হবে। ব্যবহৃত টিস্যু নির্দিষ্ট স্থান ফেলতে হবে। জ্বর, সর্দি, কাশি ও গলা ব্যাথা হলে স্বাস্থ্য সেবা প্রদানকারী কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে।

গর্ভবতী নারীর জন্য করোনা কতটা ঝুকিপূর্ণ

৩. বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, করোনা আক্রান্ত গর্ভবতী নারীদের অগ্রধিকার ভিত্তিতে পরীক্ষনিরিক্ষাসহ সকল বিশেষ স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে হবে।
 
৪. সংস্থাটি আজো নিশ্চিত নয়, কোন করোনা আক্রান্ত গর্ভবতী তাঁর গর্ভের ভ্রুনে বা সন্তানের শরীরে  ভাইরাসটি ছড়াতে পারে কিনা। তবে আশার কথা হলো, এখন পর্যন্ত মাতৃদুগ্ধে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।
 
৫. ডব্লিইএইচও এর মতে, করোনা আক্রান্ত রোগীর প্রসব সিজারিয়ান হবে নাকি স্বাভাবিক হবে, তা নির্ভর করবে মেডিক্যাল পরীক্ষা ও প্রসূতির পছন্দের উপর।
 
৬.সংস্থাটি বলছে, করোনা সংক্রমিত মা তাঁর সন্তানকে স্পর্শ  করতে পারবেন, বাচ্চার  সাথে রুম শেয়ার করতে পারবেন ও বুকের দুধও খাওয়াতে পারবেন। তবে, তাকে হাঁচি কাঁশির বিধি মেনে চলতে হবে। মাস্ক পরতে হবে। বাচ্চাকে স্পর্শ করার আগে ও পরে হাত ধুতে হবে। এবং যেসব জায়গা মা স্পর্শ করেন, সেগুলো নিয়ম করে পরিষ্কার করতে হবে।